,

অভিনব কর্মসূচি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর

আকাশবার্তা ডেস্ক :

  • ২০০ টাকা মূল্যমানের ২০ কোটি পিস বিনিময়যোগ্য নোট ছাড়বে বাংলাদেশ ব্যাংক
  • ৭% সুদে ১০ হাজার কোটি টাকার ঋণ কর্মসূচি কৃষি ব্যাংকের
  • ‘বঙ্গবন্ধু শতায়ু সঞ্চয় প্রকল্প’ বেসিক ব্যাংকের
  • দরিদ্র কৃষকের সুদবিহীন ঋণ কর্মসূচি সোনালীর
  • এসডিজি অর্জনে ‘অগ্রণী গ্রাম’ কর্মসূচি অগ্রণীর
  • অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহনির্মাণ প্রকল্প রূপালীর
  • বেকারদের জন্য ঋণ বিতরণ স্কিম জনতা ব্যাংকের

দেশ পুনর্গঠনে প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছিলো সরকারি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর। তলাবিহীন ঝুড়ির তকমা ঘুচিয়ে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীলের প্রাথমিক মর্যাদা অর্জনেও সরাসরি বিনিয়োগ রয়েছে এসব প্রতিষ্ঠানের।

এখন চলছে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার কর্মসূচিতে সমৃদ্ধ অর্থনীতি গড়ার কাজ। এতে কৃষি, শিল্প, ম্যানুফ্যাকচারিংসহ আর্থ-সামাজিক বিভিন্ন খাতে যে উচ্চাভিলাসী কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে, সেখানেও স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ রয়েছে এই রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর।

এভাবে স্বাধীনতা-উত্তর ৪৮ বছর পার হয়েছে। সামনে স্বাধীনতার স্থপতি ও সোনার বাংলার স্বপ্নের কারিগরের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের সময়। আগামী ১৭ মার্চ, ২০২০-এ এই জন্মশতবার্ষিকী উদযাপিত হবে। তাই বসে নেই এসব প্রতিষ্ঠান।

বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক অভিনব কর্মসূচির মাধ্যমে তারা এই জন্মশতবার্ষিকীকে স্মরণীয় করে রাখতে চায়। এ লক্ষ্যে নিজেদের প্রতিষ্ঠানের কর্মকাণ্ডের স্বকীয়তা বজায় রেখে যার যার অবস্থানে সক্ষমতার মধ্যে নেয়া হচ্ছে সুদূরপ্রসারী হরেক কর্মপরিকল্পনা।

এ লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক ড. কামাল আবদুল নাসের কর্তৃক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর গৃহীত কর্মপরিকল্পনা যাচাই-বাছাইয়ের পর তা ইতোমধ্যে চূড়ান্ত হয়েছে। এখন এসব কর্মসূচির বাস্তবায়ন অগ্রগতি তদারক করছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম।

সম্প্রতি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অতিরিক্ত সচিব এ বি এম রুহুল আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই সভার কার্যবিবরণী সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। সভায় ২০টি রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচির অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয়।

এতে অতিরিক্ত সচিব এ বি এম রুহুল আজাদ উচ্চপর্যায়ের বার্তা দিয়ে এসব প্রতিষ্ঠান প্রতিনিধিদের বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে পালিত হবে। এজন্য প্রত্যেক মন্ত্রণালয় ও তাদের আওতাধীন বিভিন্ন বিভাগ স্বউদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সরকারি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোও তা করছে।

কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠান যেহেতু সেবামূলক, তাই জন্মশতবার্ষিকীর কর্মসূচি সর্বজনীন, টেকসই ও জনকল্যাণমুখী হওয়া উচিত। বাস্তবায়নপর্যায়ে সবাইকে সেদিকে লক্ষ্য রেখে প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক : বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক অনুমোদিত ডিজাইন অনুযায়ী ১০০ টাকা মূল্যমানের ১০ লাখ পিস স্মারক ব্যাংক নোট ও ২০০ টাকা মূল্যমানের ২০ কোটি পিস বিনিময়যোগ্য স্মারক নোট বাজারে ছাড়া হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, এসব স্মারক ও বিনিময়যোগ্য নোট মুদ্রণের জন্য ইতোমধ্যে দি সিকিউরিটি প্রিন্টিং কর্পোরেশন (বাংলাদেশ) লিমিটেডকে কার্যাদেশ দেয়া হয়েছে। নোট ছাপানোর জন্য প্রয়োজনীয় কাঁচামালের আমদানি প্রক্রিয়া এবং স্মারক নোটের লিটারেচার, খাম ও ফোল্ডার তৈরির কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

এছাড়া জন্মশতবার্ষিকীতে একটি স্বর্ণ স্মারক মুদ্রা, একটি রৌপ্য স্মারক মুদ্রাও বের করা হবে। মোট এক হাজার পিস স্বর্ণমুদ্রা এবং পাঁচ হাজার পিস রৌপ্য স্মারক মুদ্রা মুদ্রণে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বানের প্রক্রিয়াও ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।

সোনালী ব্যাংক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রাণ দরিদ্র্য কৃষকের জন্য সুদবিহীন ঋণ বিতরণ কর্মসূচি চালু করছে সোনালী ব্যাংক। এছাড়া স্বাধীনতা যুদ্ধে বিভিন্ন ক্ষেত্রে (সম্মুখ সমর, শিল্প-সাহিত্য, সঙ্গীত-সাংস্কৃতিক) বিরোচিত ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রাখা ব্যক্তিদের ‘বঙ্গবন্ধু পদক’ প্রদান করবে তারা।

বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত জুরি বোর্ড এ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করবে। বঙ্গবন্ধুর জীবন দর্শন, রাজনৈতিক ও আর্থ-সামাজিক বিভিন্ন দিক নিয়ে বিভাগীয় এবং জাতীয় পর্যায়ের স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। পাশাপাশি এ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ও অবসরপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধাদেরও সম্মাননা দেবে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক।

বঙ্গবন্ধুর ওপর বিশিষ্ট গবেষক ও লেখকদের দিয়ে পূর্ণাঙ্গ জীবনী গ্রন্থ সংকলন ও প্রকাশেরও উদ্যোগ নেবে সোনালী ব্যাংক। থাকবে বিশেষ আলোচনা অনুষ্ঠান, মিলাদ-মাহফিল। পাশাপাশি ব্যাংকের অর্থায়নে স্থানীয় এতিমখানায় থাকবে উন্নতমানের খাবার পরিবেশনের আয়োজন।

জনতা ব্যাংক : শিক্ষিত বেকার ও অসচ্ছল তরুণ-তরুণীদের জন্য ‘জনতা ব্যাংক বঙ্গবন্ধু শুভ সূচনা’ নামক ঋণ বিতরণ স্কিম চালু করবে জনতা ব্যাংক। এছাড়া ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী শুভ হোক’ শীর্ষক সিলমোহর এবং বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ-সংবলিত বুকলেট প্রকাশ করবে তারা।

এর বাইরে প্রধান কার্যালয়সহ সকল শাখায় বঙ্গবন্ধুর জীবনী/যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনর্গঠনে বঙ্গবন্ধুর ভাবনা এবং তা বাস্তবায়নে রাষ্ট্র মালিকানাধীন ব্যাংকের ভূমিকা শীর্ষক বছরব্যাপী আলোচনা ও ভিডিও প্রদর্শন কর্মসূচির আয়োজন করা হবে। প্রধান কার্যালয়ের ভবনের নিচে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ও লাইব্রেরি এবং স্টাফ কলেজসমূহে ‘বঙ্গবন্ধু গ্যালারি’ ও ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ স্থাপন করা হবে।

অগ্রণী ব্যাংক : টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) অভিষ্ট লক্ষ্য পূরণে ‘অগ্রণী গ্রাম’ নামে যেকোনো একটি গ্রামের মানুষের জন্য খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, স্যানিটেশন, সুপেয় পানি, সুস্বাস্থ্য ও ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারে আর্থিক সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে অগ্রণী ব্যাংক। এর ন্যূনতম ব্যয় ধরা হচ্ছে ৫০ লাখ টাকা।

পাশাপাশি ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ ও আমানতে যেসব গ্রাহক উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে, তাদের মধ্য থেকে বার্ষিকভিত্তিতে শীর্ষস্থানীয় একাধিক গ্রাহককে ‘বঙ্গবন্ধু গ্রাহক সন্মাননা’ দেয়ারও পরিকল্পনা নিয়েছে অগ্রণী। তবে তারাও অন্যান্য ব্যাংকের মতো বঙ্গবন্ধু স্বর্ণপদক প্রদান, বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন এবং সভা-সেমিনারের আয়োজন করবে।

রূপালী ব্যাংক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী বছরকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত রূপালী ব্যাংক। এ লক্ষ্যে বছরব্যাপী ব্যাংকের কর্মকাণ্ড পরিচালনায় ‘মুজিব বর্ষের স্পর্শে নন্দিত ২০২০’ এমন নতুন স্লোগান নির্ধারণ করেছে। রূপালী ব্যাংকের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করা মাত্র এই স্লোগানের মাধ্যমে স্বাগত জানানো হচ্ছে গ্রাহককে।

এর মাধ্যমে এই ব্যাংক তার সকল গ্রাহককে মুজিব বর্ষের গুরুত্ব বুঝানোর চেষ্টা করছে। ওদিকে শুধু স্লোগান নির্ধারণেই থেমে থাকেনি রূপালী ব্যাংক। আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের অংশ হিসেবে অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য গৃহনির্মাণ করে দেয়ারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত এই ব্যাংকটি। এজন্য তাদের সিএসআর খাত থেকে তিন লাখ টাকা ব্যয়ে প্রত্যেক অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধার জন্য একটি করে গৃহনির্মাণ করে দেবে।

এর আওতায় প্রাথমিকভাবে অন্তত ১০০ জন মুক্তিযোদ্ধা এই সুযোগ পাবেন। পাশাপাশি মুজিব বর্ষকে স্মরণীয় রাখতে দরিদ্র্য কৃষকের জন্য সুদবিহীন ঋণদান কর্মসূচিও রেখেছে রূপালী ব্যাংক। এছাড়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর জীবনদর্শনের ওপর গবেষণার জন্য এ খাতে পাঁচ লাখ টাকা হারে আর্থিক অনুদানও দেবে রূপালী ব্যাংক।

বেসিক ব্যাংক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধু শতায়ু সঞ্চয় প্রকল্প’ চালু করবে বেসিক ব্যাংক লিমিটেড। প্রকল্পের উদ্দেশ্য সম্পর্কে ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা জানান, দেশের বয়স্ক নাগরিকদের অনেকেরই বৃদ্ধ বয়সের অবলম্বন হিসেবে প্রয়োজনীয় অর্থকড়ি থাকে না।

ফলে ছেলে-মেয়ে বা অন্য কারো ওপর নির্ভর করা ছাড়া তাদের আর কিছু করার থাকে না। এমন বিবেচনায় একজন নাগরিককে অল্প বয়স থেকেই বৃদ্ধ বয়সের অবলম্বন হিসেবে কিছু টাকা জমানোর সুযোগ দেয়ার জন্য এই মাসিক সঞ্চয় প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

এদিকে ‘বঙ্গবন্ধু শতায়ু সঞ্চয় প্রকল্প’ ছাড়াও জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বেসিক ব্যাংক দেশের সবকটি বিভাগে একটি করে নির্বাচন করে সেখানে একটি আলমারি, বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ওপর পুস্তিকা সরবরাহ করবে।

তাছাড়া বঙ্গবন্ধুর স্কেচকৃত ঐতিহাসিক ছবি-সংবলিত ‘মুজিব বর্ষ ক্যালেন্ডার-২০২০’ও প্রকাশ করবে তারা। থাকবে স্কুল শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে রচনা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা এবং দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠান। থাকছে জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন কর্মসূচিও।

বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দারিদ্র্যমুক্ত ও ক্ষুধামুক্ত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেছেন। তার এ স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে স্বল্প সুদে (মাত্র ৭ শতাংশ) বিশেষ ঋণদান কর্মসূচি (কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ) হাতে নিয়েছে। এ লক্ষ্যে ১০ হাজার কোটি টাকার একটি বিশেষ তহবিল গঠনের চেষ্টা চলছে।

প্রাথমিকভাবে ব্যাংকের নিজস্ব উৎস থেকে দারিদ্র্যবিমোচনে বিশেষ ঋণদান কর্মসূচির আওতায় ২০০ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ শুরু হবে। এতে অতি দারিদ্র্য জনগোষ্ঠী, যাদের জামানত দেয়ার সক্ষমতা নেই তাদেরও এই কর্মসূচির আওতায় ঋণ দেবে কৃষি ব্যাংক।

তাছাড়া এর মাধ্যমে তিন থেকে পাঁচজনের গ্রুপভিত্তিক ঋণও প্রদান করা হবে। শাখা ব্যবস্থাপক তার নিজ ক্ষমতায় এই ঋণ দিতে পারবেন। কৃষি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আশা করছে, এর মাধ্যমে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর মাঝে কৃষিভিত্তিক কর্মসংস্থান তৈরি হবে। নারীর ক্ষমতায়ন বাড়বে। পাশাপাশি দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উন্নয়নেও বিশেষ ভূমিকা রাখা সম্ভব হবে।

এছাড়া মুজিব বর্ষকে সামনে রেখে সততা ও ন্যায়নিষ্ঠা প্রতিষ্ঠায় কৃষি ব্যাংক তিনজন ভালো ঋণ গ্রহীতা এবং ব্যাংকের সেরা পারফরমেন্স অর্জনকারী তিনজন শাখা ব্যবস্থাপককে বিশেষ পুরস্কারও দেবে।

এছাড়া জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ১৭ মার্চ, ২০২০ থেকে ১৭ মার্চ, ২০২১ পর্যন্ত সময়ের জন্য বিশেষ বর্ষপঞ্জিকা হিসাবে মুজিব বর্ষপঞ্জিকা প্রকাশ করবে। এর বাইরে বছরব্যাপী বিভিন্ন দিবস যেমন স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস, কারাবরণ দিবস, ৭ মার্চ ভাষণ, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবসসহ অন্যান্য দিবসে বিশেষ আলোচনা সভা ও সেমিনারের আয়োজন করবে তারা।

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক : বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন, পুস্তক ক্রয়, ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান, কোটপিন পরিধান, ঋণ প্রবাহ বৃদ্ধি, আমানত এবং ঋণ কর্মসূচি প্রবর্তন, বঙ্গবন্ধু পুরস্কার প্রদান ও আলোচনা সভা এবং র্যালি করবে তারা।

এসইসি : বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি প্রদান করবে। কমিশনে কর্মরত সব শ্রেণির কর্মচারীদের মেধাবী সন্তানদের মধ্যে তা প্রদান করা হবে। এ জন্য এক কোটি টাকা ব্যাংকে ফিক্সড ডিপোজিট রাখা হয়েছে।

এছাড়া কমিশনের নিজস্ব ভবনের সুবিধাজনক জায়গায় বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন করবে। যেখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি প্রতিস্থাপন করা হবে। এছাড়াও মুজিব বর্ষ উপলক্ষে একটি সেমিনারেরও আয়োজন করবে। এর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

থাকবে সিম্পোজিয়াম, অলিম্পিয়াড, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রক্তদান কর্মসূচি। পাশাপাশি এই বিনিয়োগ শিক্ষা কর্মসূচিতে ‘বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক ভাবনা’ অন্তর্ভুক্ত করার উদ্যোগও নিয়েছে এসইসি।

আরডিএ : বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আরডিএ) বঙ্গবন্ধু শিক্ষা বিমা, বঙ্গবন্ধু ক্রীড়া বিমা, বঙ্গবন্ধু বিমা বৃত্তি ও বঙ্গবন্ধু বিমা পুরস্কারের আয়োজন করবে। এছাড়া বঙ্গবন্ধু বিমা মেলারও আয়োজন করবে তারা।

এমআরএ : ক্ষুদ্রঋণ প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ (এমআরএ) আওতাভুক্ত সনদপ্রাপ্ত ৭২৩টি ক্ষুদ্রঋণ প্রতিষ্ঠান তাদের সক্ষমতা অনুযায়ী কর্পোরেট সোস্যাল রেসপনসিবিলিটির (সিএসআর) আওতায় ক্ষুদ্রঋণের গ্রাহকদের সন্তানদের মধ্যে ‘বঙ্গবন্ধু উচ্চশিক্ষা বৃত্তি’ প্রদান করবে। প্রাথমিকভাবে ১৫০ জনকে এ বৃত্তি দেবে তারা। পরবর্তীতে পরিধি আরও বাড়াবে।

বিডিবিএল : বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (বিডিবিএল) শ্রদ্ধা নিবেদন, কুরআনখানি, দোয়া ও মুনাজাত, পথশিশু এবং দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা কর্মসূচি পালন করবে। এছাড়াও রয়েছে আলোচনা সভা, রক্তদান কর্মসূচি, বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন, অনুদান প্রদান, প্রকাশনা, ওয়েবসাইট ও বিলবোর্ড এবং ব্যানারে বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শ প্রচারের উদ্যোগ।

সাধারণ বিমা কর্পোরেশন : ‘বঙ্গবন্ধু সুরক্ষা বিমা’ শীর্ষক জনপলিসি চালু করবে সাধারণ বিমা কর্পোরেশন। থাকবে বঙ্গবন্ধুর কর্ম ও জীবন নিয়ে আলোচনা সভা এবং দোয়া-মাহফিলের আয়োজন। এছাড়া পুষ্পস্তবক অর্পণ, র্যালি প্রদর্শন, স্মারকগ্রন্থ প্রকাশ, শ্রদ্ধাঞ্জলি সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন প্রকাশ, বঙ্গবন্ধু পদক প্রদান করবে সংস্থাটি।

জীবন বীমা : বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ১ মার্চ, ২০২০ থেকে ‘বঙ্গবন্ধু সর্বজনীন পেনশন বিমা স্কিম’ চালু করবে জীবন বীমা। জীবন বীমা টাওয়ারকে ‘বঙ্গবন্ধু জীবন বীমা টাওয়ার’ নামকরণ, আধুনিক প্রিমিয়াম কালেকশন বুথ ও সেবাকেন্দ্র স্থাপন করবে তারা।

এছাড়া গরিব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপবৃত্তি প্রদান, বঙ্গবন্ধু পদক প্রদান, আলোচনা সভা, গ্রাহক সেবা পক্ষ এবং সংস্থার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।

আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক : ‘বঙ্গবন্ধু স্মৃতি শিক্ষাবৃত্তি’ প্রদান করবে আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক। এর সুবিধাভোগী বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্য-সদস্যদের মেধাবী সন্তানদের জন্য বৃত্তি প্রদানের উদ্দেশ্যে এই বৃত্তি চালু করা হবে।

এজন্য ব্যাংকের বার্ষিক মুনাফার একটি নির্ধারিত অংশ থেকে এর তহবিল গঠন করা হবে। পাশাপাশি ব্যাংকের সুবিধাভোগীদের সঞ্চয়ে উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে তাদের আত্মনির্ভরশীল করার লক্ষ্যে মুজিব বর্ষ উপলক্ষে চালু করা হবে ‘বঙ্গবন্ধু ডিপোজিট স্কিম’।

কর্মসংস্থান ব্যাংক : অঞ্চলভিত্তিক তিনজন নিয়মিত ঋণ বা কিস্তি পরিশোধকারী সফল উদ্যোক্তাকে ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান এবং বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করবে কর্মসংস্থান ব্যাংক।

এছাড়া বাংলাদেশ ইন্সুরেন্স একাডেমি, আইসিবি, বিআইসিএম, বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশনও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে অনুরূপ কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

     এই বিভাগের আরও সংবাদ

আর্কাইভ

জানুয়ারি ২০২০
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« ডিসেম্বর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
}